ঢাকা বুধবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২২ ইং | ৬ মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

টাঙ্গাইলে ৮ম আন্তর্জাতিক কবি মিলন মেলা কবিতা উৎসবে আমন্ত্রণঃ মুক্তা

প্রকাশিত: ১৪ জানুয়ারী ২০২২, ভোর ৪ঃ০১

টাঙ্গাইলে ৮ম আন্তর্জাতিক কবি মিলন মেলা কবিতা উৎসব ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান "মায়ের ঘর" শিরোনামে (২০১৫) সাল থেকে মাটির মা ফাউন্ডেশন'র প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান মতিয়ারা মুক্তা (মাটির মা)'র জন্মস্থান  টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলা শালিয়াবহ গ্রামে অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। তাছাড়া মাটির মা ফাউন্ডেশন দুই বাংলার জেলা উপজেলায় ধর্মীয়, সাহিত্য সাংস্কৃতিক ও বিভিন্ন সরকারি বেসরকারি অনুষ্ঠানমালায় সুনামের সহিত স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে অংশগ্রহণ করে আসছে।নিয়মিত সোশ্যাল মিডিয়ায় কবিতা প্রতিযোগিতা এবং সাপ্তাহিক লাইভ টকশো "মায়ের ঘর" শিরোনামে প্রচার হয়ে থাকে।ইতোমধ্যে মাটির মা ফাউন্ডেশন'র মানবিক কাজের জন্য সকল শ্রেণী পেশার মানুষের কাছে সমাদৃত ও অনেক মানুষের হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছে।

মাটির মা সংগঠনে সমৃক্ত আছেন সকল মানবিক প্রেমিরা, যারা মানুষের সেবায় সর্বদা নিজেদের মত্ত রাখেন। সেই সাথে দেশ ও মানবতার কল্যাণে বিভিন্ন শ্রেণী পেশায়জড়িত সেচ্ছাসেবীরাও স্বইচ্ছায় এই সংগঠনের সাথে যোগ দেন। নিজ উদ্যোগে স্বইচ্ছায় নিরলসভাবে মায়ের ঘর ব্যানারে কাজ করেন।

বিগত অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত হয়েছিলেন- দুই বাংলার স্বনামধন্য কবি, সাহিত্যিক,  সাংবাদিক, সংগঠক, সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গসহ সর্ব স্তরের জনসাধারণ।

অনুষ্ঠানে বরাবরই বিভিন্ন পর্বে অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকেন- দুই বাংলার গুণীজনরা। উক্ত অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে স্থানীয় গ্রামাঞ্চলের সাধারণ জনগনের মাঝেও ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার আলোড়ন তৈরি হয়। আশপাশের রাস্তায় রাস্তায় রঙ, ব্যানার, ফেস্টুন ও দোকানে দোকানে ভরে যায় এলাকাটি।

বাঙালি নারীর অহংকার শাড়ি, সেই ঐতিহ্যকে মনে করিয়ে দিতেই শাড়ি পরিহিত মেয়েরা সাতরঙা ফুলের পাপড়ি ছিটিয়ে বরণ করেন আগত সকল অতিথিদের।সেই সাথে আগত সকলকে স্বাধ্য অনুযায়ী আপ্যায়নেও কমতি থাকেনা। অনুষ্ঠানে দেশ ও দেশের বাহির থেকে আগতদের স্থানীয় এলাকার বাড়ি বাড়ি করা হয় থাকার ব্যবস্থা। গ্রামবাসী গরু ও খাসি কিনে উপহার দেন অতিথি আপ্যায়ন'র জন্য।

মাটির মা ফাউন্ডেশন'র বিভাগীয়, জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ের সকল সদস্যদের বরণ করে নেয়া হয় উক্ত আয়োজনে।

এবার পরিবেশ ও পরিস্থিতির উপর ভিক্তি করে অনুষ্ঠান মালায় বরাবরের মতোই এবারেও থাকছে- ১০ ও ১১ মার্চ দুই বাংলার অতিথি বরণ, শুভেচ্ছা বিনিময়, ওয়াজ ও মিলাদ মাহফিল, আলোচনা অনুষ্ঠান, কবিতা আবৃতি, দেশ বিদেশের শিল্পীদের উপস্থিতিতে গান ও নৃত্যসহ ব্যতিক্রমী নানান আয়োজন।

১২ মার্চ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা করা হবে।

মাটির মা ফাউন্ডেশন'র প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান মতিয়ারা মুক্তা (মাটির মা) দুই বাংলা এবং দেশ বিদেশের সকল কবি, সংগঠক, সাংবাদিক ও সাংস্কৃতিকমনা ব্যক্তিদের আমন্ত্রণ জানিয়ে বলেন- এ আয়োজন সাহিত্য সংস্কৃতির ধারা বাহক হিসেবে আমরা বহণ করি। তারই ধারাবাহিকতায় সারাবছর বিভিন্ন অনুষ্ঠান মায়ের ঘর শিরোনামে করে থাকি। সেই সাথে বছরে একটিবার সবাইকে একত্র করতে এমন আয়োজন করে সবাইকে আমন্ত্রণ জানিয়ে থাকি। আপনারা অতীতের তুচ্ছতাচ্ছিল্য ঘটনা গুলো ভুলে আসুন আবারো মাতি নতুনত্বভাবে এবং উপস্থিত হই স্ব-বান্ধবে।