ঢাকা শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১ ইং | ১ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

দুই চাচাতো ভাইসহ আপন চাচীকে বিয়ে করলেন আ’লীগ নেতা

প্রকাশিত: ২৪ অগাস্ট ২০২১, রাত ৯ঃ৩০

দীর্ঘদিন পরকীয়া সম্পর্ক অতঃপর আপন চাচার দুই সন্তানসহ স্কুল শিক্ষিকা চাচী রহিমা আক্তার রুমা (৩৫)কে বিয়ে করলেন ভাতিজা শরিফুল ইসলাম।

 

টাঙ্গাইলের সখিপুর উপজেলার কালিদাস পানাউল্লাহপাড়া গ্রামে এই ঘটনা ঘটেছে।আলোচিত ভাতিজা শরিফুল বহুরিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

 

এদিকে নিজের স্ত্রী সন্তান থাকতেও চাচার কাছ থেকে চাচীকে ভাগিয়ে নিয়ে দুই সন্তানসহ বিয়ে করার বিষয়টি নিয়ে এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

 

জানা যায়, ১৯৯৮ সালে উপজেলার কালিদাস পানাউল্লাহপাড়া গ্রামের রাইজ উদ্দিনের ছেলে ইমান আলীর সাথে নলুয়া মোল্লাপাড়া গ্রামের আমির মোল্লার মেয়ে রহিমা আক্তার রুমার(৩৫) বিয়ে হয়।বিয়ের কয়েক বছর পরই ভাসুরের ছেলে আওয়ামী লীগ নেতা শরিফুল ইসলামের সঙ্গে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়েন রহিমা।এর ফলে দিনদিন রহিমা ও তার স্বামী ইমান আলীর সাথে দূরত্ব সৃষ্টি হতে থাকে।এর এক পর্যায়ে বিষয়টি সারা গ্রামে ছড়িয়ে পড়লে শরিফকে এ পথ থেকে ফেরাতে তার পরিবার ২০১৭ সালে বাসাইলের ময়থা গ্রামের বিয়ে করান। এতেও শরীফ আর রহিমা সম্পর্ক থেমে  থাকেনি।অবশেষে ২০১৯ সালে চাচীকে দিয়ে ফুসলিয়ে চাচাকে ডিভোর্জ করান শরিফুল।অতঃপর দুই পরিবারের সমঝোতায় গত সপ্তাহে বিয়ের মাধ্যমে ভাতিজা ও চাচীর দেড় যুগের পরকীয়ার অবসান ঘটেছে।

 

ঘটনা জানতে চাচী রহিমা ও তার ভাই আনোয়ার মোল্লার মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তারা উভয়ই বিয়ে হওয়ার সত্যতা স্বীকার করেন।

 

এ ব্যাপারে বহুরিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম জানান, শরিফুল ও রহিমার পরিবারের মধ্যে সমঝোতা হয়।পরে দুই পরিবারের সমঝোতার মাধ্যমেই এই বিয়ে সম্পন্ন করা হয়েছে এবং শরিফের বর্তমান স্ত্রীও বিষয়টি মেনে নিয়েছে।

 

বহুরিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম কিবরিয়া সেলিম বলেন,নিজের স্ত্রী সন্তান থাকার পরও সমাজে নেতৃত্বদানকারী ব্যক্তি হয়ে শরিফুল ইসলামের পরিপন্থী এমন একটি কাজ করা ঠিক হয়নি।

 

এবিষয়ে রহিমার পূর্বের স্বামী ইমান আলী বলেন,শরিফ আমার ভাতিজা হয়ে আমার সুখের সংসার জ্বালিয়ে পুড়িয়ে ছাড়খাড় করে দিয়েছে।সে আমার সন্তান দুটোকেও আমার কাছ থেকে ছিনিয়ে নিয়েছে। আমি ওই লম্পটের বিচার চাই।

 

চাচীকে বিয়ের বিষয়টি স্বীকার করে শরিফুল ইসলাম বলেন, লকডাউন থাকায় বিয়ের দাওয়াত দিতে পারি নাই। আপনাদের অচিরেই দাওয়াতের ব্যবস্থা করা হবে।